টেকনোলজির সংবাদ

শের-ই বাংলা হাইটেক পার্ক স্থাপনের সম্ভাব্য স্থান পরিদর্শন

বানারীপাড়া প্রতিনিধি : অবিভক্ত বাংলার মুখ্য মন্ত্রী শের-ই বাংলা আবুল কাসেম ফজলুল হকের পুণ্যভূমি বরিশালের বানারীপাড়ার চাখারে তার নামে প্রস্তাবিত হাই-টেক পার্ক স্থাপনের সম্ভাব্যতা যাচাই ও স্থান পরিদর্শন করেছেন বিশেষজ্ঞরা।

গতকাল বৃহস্পতিবার তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের উপ-সচিব জোহরা বেগমের নেতৃত্বাধীন বিশেষজ্ঞরা চাখারের সোনাহার-সাকরাল গ্রামে সন্ধ্যা নদীর তীরে হাইটেক পার্ক স্থাপনের প্রস্তাবিত জায়গা পরিদর্শন করেন।
এ সময় বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের অ্যাসিস্ট্যান্ট মেইনটেন্যান্স প্রকৌশলী মো. মাহাবুল আলম, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মফিজুর রহমান, চাখার ইউপি চেয়ারম্যান খিজির সরদার, বানারীপাড়া প্রেসক্লাব সভাপতি রাহাদ সুমন ও উজিরপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি আ. রহিম সরদার প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের উপ-সচিব জোহরা বেগম বলেন, সরকার দেশের প্রতিটি জেলায় হাইটেক পার্ক স্থাপনের উদ্যোগ নিয়েছে। এর অংশ হিসেবে অবিভক্ত বাংলার মুখ্যমন্ত্রী শের-ই বাংলা আবুল কাসেম ফজলুল হকের পুণ্যভূমি চাখারে তার নামে প্রস্তাবিত হাইটেক পার্ক স্থাপনের সম্ভাব্য স্থান পরিদর্শন করেছেন। ঢাকায় ফিরে এ বিষয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে প্রতিবেদন দেওয়ার পর তারা পরবর্তী সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবেন।

২০১২ সালে বরিশাল-২ (বানারীপাড়া-উজিরপুর) আসনের তৎকালীন সরকার দলীয় সংসদ সদস্য মো. মনিরুল ইসলাম মনি শের-ই বাংলার চাখার ইউনিয়নের সোনাহার-সাকরাল গ্রামে সন্ধ্যা নদীর তীরে হাইটেক পার্ক স্থাপনের উদ্যোগ নেন।

ওই সময় প্রধানমন্ত্রীর পিএস ও সচিব নজরুল ইসলাম খান সহ সংশ্লিষ্ট দপ্তরের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা সরেজমিন পরিদর্শন করে হাইটেক পার্ক স্থাপনের নীতিগত সিদ্ধান্ত নেয়। তখন চাখারের সোনাহার-সাকরাল গ্রামের সন্ধ্যা নদীর তীরে জেগে ওঠা বিশাল চরের পাশাপাশি বিকল্প হিসেবে চাখার সরকারী ফজলুল হক কলেজের সম্পত্তিতে হাইটেক পার্ক স্থাপনের প্রস্তাব দেয়া হয়।

মন্তব্য করুন

Back to top button