বরিশাল বিভাগের সংবাদ

বরগুনায় নিম্নাঞ্চল প্লাবিত, জনজীবন বিপর্যস্ত

সঞ্জীব  দাস, বরগুনা : বরগুনায় দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়া ও টানাবর্ষণে জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। সাগরে সৃষ্ট নিম্নচাপের প্রভাবে বরগুনাসহ উপকূলীয় এলাকায় শুক্রবার সকাল থেকেই টানাবর্ষণ ও দমকা হাওয়া বয়ে যাচ্ছে। বৃহ¯পতিবার রাত থেকে দমকা হাওয়া ও ভারী বৃষ্টি ঝরছে। এতে দুর্ভোগে পড়েছেন খেটে খাওয়া সাধারণ মানুষ। ব্যাহত হচ্ছে স্বাভাবিক জীবনযাত্রা।
বরগুনায় বিভিন্ন এলাকার মাছের ঘের ও পুকুরের মাছ ভেসে গেছে। বিভিন্ন চর এলাকায় আরো মাছের ঘের ভেসে যাওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। প্রবল বর্ষণে রাস্তাঘাট এমনকি বাড়িঘরে পানি ঢুকে স্বাভাবি জীবনযাত্রা থমকে আছে। তিন দিনের টানা বৃষ্টিতে রবিশস্যের খেত ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। একই সঙ্গে  আমন ধানের খেত তলিয়ে গেছে।
বুধবার  থেকে টানাবর্ষণে  জেলার ৬টি উপজেলার  নিন্মাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। বরগুনা,বেতাগী,পাথরঘাটা,ও আমতলী পৌরসভার গুরুত্বপূর্ণ সড়কের খানাখন্দকে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়ে জনজীবনে বিপর্যয়  সৃষ্টি হয়েছে। পানি উন্নয়ন বোর্ড বৃহস্পতিবার সকাল ৯ টা থেকে শুক্রবার সকাল ৯ টা পর্যন্ত ২৬০ মিলি মিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করেছে।
জেলায় বিভিন্ন বেড়ীবাঁধের বাইরে অব¯িহত আবাসন,আশ্রয়ন,এবং বস্তিবাসীরা  বৃষ্টি আর জোয়ারের পানিতে পরিবার পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবন করছে। বরগুনা পৌরসভার, চরকলোনী, কলেজ সড়ক,কলেজ ব্রাঞ্চ সড়ক,ব্যাংক কলোনী,আমতলা পাড়,বাজার সড়ক,বঙ্গবন্ধু সড়ক,গোলাম সরোয়ার সড়ক,পশু হাসপাতাল সড়কে বৃষ্টির পানি জমে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে।
এ ছাড়া বেড়ীবাঁধের বাহিরে অব¯িহত  সহাস্রাধিক বসতবাড়ী বৃষ্টি আর জোয়ারের পানিতে তলিয়ে আছে। পানি উন্নয়ন  বোর্ডের তথ্যমতে শুক্রবার বেলা ১২ টা পর্যন্ত বিষখালী, বুড়ীশ্বর (পায়রা) বলেশ্বর নদীতে জোয়ারের পানি স্বাভাবিকের চাইতে ৩ ফিট উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।  বরগুনার উপকূলীয় এলাকার অনেক বাড়ীতে রান্না করার পরিস্থিতি নেই।
জেলা প্রশাসক মোস্তাইন বিল্লাহ, বৃহস্পতিবার রাতে সভা করেছেন। সভায় জেলার স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন সিপিডিবি এবং সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে। বরগুনায় ৫০৯টি আশ্রয়কেন্দ্র প্রস্তুত রাখ হয়েছে।
বরগুনা পৌরসভার মেয়র ও পৌর আওয়ামীলীগের সাধারন স¤পাদক শাহাদাত হোসেনের নিজস্ব উদ্যোগে বিভিন্ন ওয়ার্ডে বর্ষায় ক্ষতিগ্রস্তদের শুকনা খাদ্য সহ আর্থিক সহায়তা পৌঁছে দেয়া হচ্ছে। ভেরের পাতাকে মেয়র শাহাদত হোসেন বলেন, পৌর এলাকার অনেকে   বাড়িঘর বৃষ্টির পানিতে ডুবে যাওয়ায় তাদেরকে শুকনো খাবার পৌঁছে দেবার ব্যাব¯হা করা হয়েছে।

আরও পড়ুন

মন্তব্য করুন

Back to top button