রাজনীতির সংবাদ

দুই পৌরসভায় আ’ লীগের জয়

স্টাফ রিপোর্টার : বরিশালের বাকেরগঞ্জ ও উজিরপুর পৌরসভায় বিপুল ভোটের ব্যবধানে আওয়ামী লীগের প্রার্থী জয়যুক্ত হয়েছেন। গতকাল সোমবার সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে।

সকালে ভোটার উপস্থিতি কিছুটা কম থাকলেও বেলা বাড়ার সাথে সাথে ভোটার উপস্থিতি বেড়েছে। তবে ভোটকেন্দ্রগুলোতে নারী ভোটার উপস্থিতি ছিলো উল্লেখযোগ্য। তবে প্রথমবারের মতো ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট হওয়ায় কিছুটা বিড়ম্বনার শিকার হচ্ছেন ভোটাররা। অনেক ভোটারের আঙুলের ছাপ ম্যাচিং না হওয়ায় তাদেরকে ফিরিয়ে দেয়া হয়েছে। এতে অসন্তোষ প্রকাশ করেন ঐ সকল ভোটাররা।

নির্বাচন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলছেন, ইভিএম পদ্ধতি নিয়ে ভোটের আগেই ভোটারদের প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়েছে। তারপরেও কিছুটা সমস্যা সৃষ্টি হচ্ছে। ধীরে ধীরে এটা স্বাভাবিক হয়ে যাবে বলে তারা আশা প্রকাশ করছেন। ভোট গ্রহণ চলাকালে বাকেরগঞ্জের প্রতিটি কেন্দ্র পরিদর্শন করে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাধবী রায় জানান, সবগুলো কেন্দ্রে শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। ভোটারের উপস্থিতিও আনেক ভালো বলে তিনি জানান। তবে মহিলা ভোটারের উপস্থিতি অনেক বেশি। এছাড়া কোনো কেন্দ্রে অপ্রীতিকর কোন খবর পাওয়া যায়নি। অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা মোতায়েন রয়েছে।

বাকেরগঞ্জ পৌরসভায় আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী লোকমান হোসেন ডাকুয়া ৭০৪১ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন। তার নিকতমপ্রতিদ্বন্দি প্রার্থী খলিলুর রহমান ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের হাতপাখা প্রতীক নিয়ে ২৪১১ ভোট পেয়েছেন। এছাড়া বিএনপির প্রার্থী এসএম মনিরুজ্জামান ৯১৪ ভোট পেয়ে পরাজিত হয়েছেন। এই পৌরসভায় ১৫ হাজার ৩০৪ ভোটের মধ্যে কাস্ট হয়েছে ১০ হাজার ৯৭টি ভোট এবং বৈধ ভোট ১০ হাজার ৬৬টি। পাশাপাশি নষ্ট হয়েছে ৩১টি ভোট।

অপরদিকে ভোট শুরুর দিকে কেন্দ্রগুলোর পরিস্থিতি ভালো থাকলেও সকাল ৯টার দিকে উজিরপুর পৌরসভার ৬ নম্বর ওয়ার্ড কেন্দ্র থেকে বিএনপি’র মেয়র প্রার্থীর পোলিং এজেন্ট বের করে দেয়া হয়েছে। ৭ নম্বর ওয়ার্ড কেন্দ্রে ক্ষমতাসীনদের দেখিয়ে ভোট দিতে বাধ্য করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এছাড়া একই পৌরসভায় ৮ নম্বর কেন্দ্রেও দেখিয়ে ভোট দিতে বাধ্য করার অভিযোগ উঠেছে। এদিকে ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট প্রয়োগ করতে পারে স্বাচ্ছন্দ প্রকাশ করেছেন অনেক ভোটার। সুস্থ ও সুন্দর ভোট নিশ্চিত করতে র‌্যাব, পুলিশ এবং বিজিবি দায়িত্ব পালন করছে। এছাড়া প্রতিটি কেন্দ্রে একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এবং একটি পৌরসভার জন্য একজন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট দায়িত্ব পালন করছেন।

জেলার উজিরপুর পৌরসভার মেয়র পদে আওয়ামী লীগ-বিএনপি এবং ইসলামী আন্দোলনের তিনজন মেয়র প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। উজিরপুর পৌরসভায় আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী গিয়াস উদ্দিন বেপারী ৫ হাজার ৭০৫ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দি প্রার্থী বিএনপির শহিদুল ইসলাম খান ৭৬৫ ভোট পেয়ে পরাজিত হয়েছেন এবং ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মেয়র প্রার্থী ৬১০ ভোট পেয়েছেন। উজিরপুর পৌরসভায় ভোটার সংখ্যা ১১ হাজার ৯২৪। এর মধ্যে কাস্ট হয়েছে ৭ হাজার ১৩২ ভোট। ###

আরও পড়ুন

মন্তব্য করুন

Back to top button