প্রধান সংবাদবরিশাল জেলার সংবাদ

নির্যাতনে আইনজীবীর মৃতু, মামলা দায়ের, এসআই ক্লোজড

আহসান হাবিব : বরিশালে পুলিশী নির্যাতনে শিক্ষানবীশ আইনজীবী রেজাউল করিম রেজাকে নির্যাতন ও হেফাজতে মৃত্যুর অভিযোগে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের এসআই মহিউদ্দিনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে বরিশাল মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদলতে মামলাটি দায়ের করেন রেজাউল করিমের পিতা ইউনুস আলী। আদালতের বিচারক মো. আনিছুর রহমান মামলাটি আমলে নিয়ে ২৩ ফেব্রুয়ারির মেধ্য পিবিআইর একজন পুলিশ পরিদর্শককে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়ার আদেশ দেন। মামলায় এসআই মহিউদ্দিন ছাড়াও অজ্ঞাত দুইজন পুলিশ সদস্যকে আসামী করা হয়েছে।

মামলায় ইউনুস মুন্সী উল্লেখ করেন, রেজাউল করিম রেজা বরিশাল আইনজীবী সমিতির সিনিয়র আইনজীবী জাকির হোসেন মিন্টুর সাথে শিক্ষানবীশ আইনজীবী হিসেবে কাজ করতো। ২৯ ডিসেম্বর মহিউদ্দিন সহ তিনজন পুলিশ হামিদ খান সড়কে রেজাউলকে ধরে রোলার দিয়ে পেটাচ্ছিলো। এরপর রেজাউলকে তুলে নিয়ে যায় তারা। ৩০ ডিসেম্বর ইউনুস মুন্সীর আরেক পুত্র আজিজুল করিম রেজাউলের সাথে বরিশাল আদালতে দেখা করতে গেলে রেজাউল জানায় শারিরীক ভাবে অসুস্থ এবং সারারাত এসআই মহিউদ্দিন সহ তিনজন পুলিশ সদস্য তাকে পিটিয়েছে। যে নির্যাতনে রেজাউল মল মূত্র ত্যাগ করে দেয়। তাকে সারারাত কোনো শীতবস্ত্র ব্যবহার করতে দেয়া হয়নি এবং কোনো খাবারও খেতে দেয়া হয়নি। রেজাউল তখন আদালতের হাজতখানায় ঠিকমত দাড়াতে পারছিলেন না। ১ জানুয়ারী কারা কতৃপক্ষ ফোন করে বলে আমাদের ছেলে খুবই অসুস্থ। রাত ১২টার পর আমার ছেলেকে মৃত ঘোষনা করা হয়।

বরিশাল আদালতের সিনিয়র আইনজীবী মহসিন মন্টু জানান, আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে পিবিআইর পুলিশ পরিদর্শক পদমর্যাদার এক কর্মকর্তাকে ২৩ ফেব্রুয়ারির মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়ার নির্দেশ দেন। অপরদিকে বরিশাল মেট্রোপলিটন গোয়েন্দা পুলিশের এসআই মহিউদ্দিন আহম্মেদকে ক্লোজড করা হয়েছে। গত সোমবার রাতে তাকে গোয়েন্দা পুলিশ থেকে ক্লোজড করে পুলিশ লাইন্সে সংযুক্ত করা হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার দুপুর আড়াইটার দিকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মো. শাহাবুদ্দিন খান। তিনি বলেন, প্রশাসনিক কারনে তাকে ক্লোজড করা হয়েছে। এছাড়াও তার বিরুদ্ধে একটি অভিযোগের তদন্ত চলায় তাকে ক্লোজড করা হয়।

প্রসঙ্গত, বরিশাল আইনজীবী সমিতির শিক্ষানবীশ আইনজীবী রেজাউল করিম রেজাকে মাদক ব্যবসায়ী সাজিয়ে গ্রেফতারের পর নির্যাতন করায় মৃত্যুবরণ করেন বলে অভিযোগ রূপাতলী সাগরদী এলাকার আব্দুল হামিদ খান সড়কের বাসিন্দা নিহত রেজাউলের পরিবারের। গত শনিবার রাত ১২টা ৫ মিনিটে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণের জন্য চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন রেজাউল। এ ঘটনার প্রতিবাদে গত রবিবার বিক্ষুব্ধ জনতা মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ ও এসআই মহিউদ্দিনের বাড়িতে হামলা করে। ঐ দিনই উপ পুলিশ কমিশনার মোকতার হোসেনকে প্রধান করে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। তদন্ত কমিটি কাজ শুরু করার পরই প্রত্যাহার করা হলো এসআই মহিউদ্দিন আহম্মেদকে।

নিহত রেজাউলের বাবা ইউনুস মুন্সী জানিয়েছেন, সোমবার কোতোয়ালী থানায় মামলা দায়েরের জন্য গিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু থানার ওসি মামলা নেননি। পরবর্তীতে গতকাল মঙ্গলবার নিহত আইনজীবীর পিতা বাদী হয়ে এসআই মহিউদ্দিন আহম্মেদের নাম উল্লেখ সহ ৩ জন পুলিশ সদস্যকে আসামী করে বরিশাল মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা দায়ের করেন।

আরও পড়ুন

মন্তব্য করুন

Back to top button